প্রায় ৫৫০ বছরেরও পুরনো সিঙ্গুরের জাগ্রত ডাকাত কালী মায়ের মন্দির

প্রায় ৫৫০ বছরেরও পুরনো সিঙ্গুরের জাগ্রত ডাকাত কালী মায়ের মন্দির
আজবাংলা        হুগলির বৈদ্যবাটী-তারকেশ্বর রোডের পাশে পুরুষোত্তমপুর এলাকায় অবস্থিত এই ডাকাতকালী মন্দির | প্রায় ৫০০ থেকে ৫৫০ বছরেরও পুরনো সিঙ্গুরের ডাকাত কালী মন্দির ঘিরে রয়েছে নানা ইতিহাস | তবে নির্দিষ্ট করে বলা এই ডাকাতকালী মন্দিরে কবে থেকে পুজো শুরু হয়েছে | তাই অনুমান অনুযায়ী প্রায় ৫০০ বছরেরও পুরোনো এই মন্দির | ডাকাতকালী মায়ের মন্দিরে জড়িয়ে আছে মা সরদারও নাম | কথিত আছে, শ্রী শ্রী রামকৃষ্ণদেব যখন অসুস্থ ছিলেন তখন তাঁকে দেখতে মা সারদা মনি কামার পুকুর থেকে দক্ষিণেশ্বর যাচ্ছিলেন, সেই সময় তার পথে আটকে দাঁড়ায় রঘু ডাকাত ও গগন ডাকাত | এই দুই ডাকাতের মূল উদ্দেশ্যে ছিল মায়ের থেকে ডাকাতি করা | ঠিক সেই সময় ওই দুই ডাকাত মা সারদা মনির মধ্যে তারা রক্ত চক্ষু মা কালীর মুখ দেখতে পায় | সঙ্গেসঙ্গে নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে মা সারদার কাছে ক্ষমা চায় তারা | ততক্ষনে সন্ধে নেমে এসেছে সেই জন্য রাতে মা সারদাকে ডাকাতরা নিজেদের আস্তানায় মায়ের থাকার ব্যবস্থা করে দেয় | জানা যায়, মা সারদা মনিকে ডাকাতরা রাত্রে বালাই চাল ভাজা ও কড়াই ভাজা খেতে দিয়েছিলেন | সেই থেকে কালীপুজোর দিনে মদ ও চাল কড়াই ভাজা দেওয়া হয় | এ ছাড়াও পুজোর প্রসাদ হিসাবে লুচি ভোগ, ফল দেওয়া হয় | সূত্রে খবর, কালি পুজোর দিন শুদ্রদের আনা গঙ্গার জল মন্দিরের দরজা বন্ধ করে ঘটে দেওয়া হয় | সেই জল থাকে সারা বছর ধরে | চার প্রহরে চার বার পুজো হয় | তারসঙ্গে হয় ছাগল বলিও | রঘু ডাকাত ও গগন ডাকাত মিলে রক্ত চক্ষু মায়ের এই মুর্তি তৈরী করে ছিলেন | পরে স্বপ্নাদেশ পেয়ে এই মন্দিরটি প্রতিষ্ঠা করেন সিঙ্গুর থানার চালকেবাটি গ্রামের মোড়লরা | কালী পুজোর দিন মোড়লদের পুজোর পর অন্য ভক্তরা পুজো দিতে পারেন | মন্দির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, মল্লিকপুরে এই ডাকাতে কালীর মায়ের মন্দির থাকায় মল্লিকপুর, জামিনবেড়িয়া ও পুরষোত্তমপুর, এই তিন গ্রামে কোন কালী পুজো আর হয় না | এমনকি তারা জানিয়েছেন, ওই এলাকায় কোন বাড়ির দেওয়ালে টাঙানো থাকেনা ক্যালেন্ডার বা কোন মূর্তি | মা এতটাই জাগ্রত যে এলাকাবাসী সাহসই পান না কেউ অন্য কোন প্রতিমার পূজা করার |