বাংলাদেশ হয়ে কলকাতায় চিনা অক্সিমিটার, ধরা পড়ল বিএসএফের হাতে

বাংলাদেশ হয়ে কলকাতায় চিনা অক্সিমিটার, ধরা পড়ল বিএসএফের হাতে
আজবাংলা,   এই করোনার কারনে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে কিছু নতুন দ্রব্য যুক্ত হয়েছে। এই নতুন দ্রব্যগুলি হল মাস্ক, পিপিই কিট, হাতের দস্তানা ও অক্সিমিটার। পাচারকারীরা এই সুযোগে পাচারের প্ল্যান করছিল প্রচুর চিনা অক্সিমিটার বাংলাদেশ হয়ে কলকাতায়। কিন্তু কলকাতার সীমান্তে যাওয়ার আগেই ১৭ লাখ টাকার উপর চিনা অক্সিমিটার ধরা পড়ল বিএসএফের হাতে। এখন কলকাতায় কার জন্য এই যন্ত্র পাচার হচ্ছিল, তা নিয়ে এখনও তদন্ত চালাছেন বিএসএফে। তবে বিএসএফ ও পুলিশ উত্তর ২৪ পরগনার পেট্রালপোলের নিবাসী সুকুমার নামে এক ব্যক্তির সন্ধান চালিয়ে এই ধাঁধার সমাধান করতে হবে বলে মনে করছেন। সূত্র থেকে জানা গেছে, বুধবার রাতে গোয়েন্দারা পেট্রালপোলে বাংলাদেশ থেকে আসা একটি মালের লরি পরীক্ষা করতে গিয়ে ড্রাইভার এর কেবিন থেকে পাঁচটি সাদা বস্তা উদ্ধার হয়। এই বস্তাগুলি খুলতেই বেরিয়ে পড়ে চিনা অক্সিমিটার। জেরার মুখে লরির ড্রাইভার বলে, বাংলাদেশ থেকে আসার সময় বাপি মন্ডল নামে একজন বস্তাগুলি দেয়। সাথে বলে দেওয়া হয়, পেট্রালপোলে সুকুমার নামে এক ব্যক্তি তার কাছ থেকে এগুলি নিয়ে নেবে। তার জন্য তাকে ৫০০ টি টাকা দেওয়া হবে। গালওয়ানের ঘটনার পর থেকেই চিনা দ্রব্য বর্জন করা শুরু করেছে বহু মানুষ। এবার চিনা দ্রব্য আর আমদানি হচ্ছেই না একপ্রকার। তাই এখন বাংলাদেশ হয়েই ঘুরপথে চিনা দ্রব্য পাচারের প্ল্যান করা হয়।